Experience YourListen.com completely ad free for only $1.99 a month. Upgrade your account today!

কম্পোজিশনঃ নূর…ুলদীনের সারা জীবন - সৈয়দ শামসুল হক

Embed Code (recommended way)
Embed Code (Iframe alternative)
Please login or signup to use this feature.

রচনা ও কম্পোজিশন - মামুন।
আবৃত্তি - আব্দুল্লাহ, মামুন।
গান - শুভজিৎ, সোয়াদ, তুষার।

ফেব্রুয়ারিকে বলা হয় ভাষার মাস, কিন্তু ফেব্রুয়ারির আন্দোলনের ইতিহাস কতটুকুই বা আমরা জানি! যুগে যুগে এই ফেব্রুয়ারিতে বেজে উঠেছে প্রতিবাদের কন্ঠস্বর, ফুঁসে উঠেছে মানুষ উৎপীড়নের বিরুদ্ধে, রুখে দাঁড়িয়েছে শোষণের বিরুদ্ধে। সেইরকমই এক ফেব্রুয়ারিতে গর্জে উঠেছিল নূরুলদীন। নূরুলদীন ও রংপুররের কৃষক বিদ্রোহ। ইংরেজ শাসনের বিরুদ্ধে সমগ্র বাংলায় প্রথম বিদ্রোহের ডাক দিয়েছিল নূরুলদীন। লর্ড কর্নওয়ালিসের তত্ত্বাবধায়নে চিরস্থায়ি বন্দোবস্ত জারি করার মধ্য দিয়ে বাংলার কৃষক সমাজকে শোষণ করার যে চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত করা হয়, তার বিরুদ্ধে প্রথম সংগঠিত প্রতিবাদী কন্ঠের নাম ছিল কৃষক নূরুলদীন। ফেব্রুয়ারির ২২ তারিখ তিনি যুদ্ধরত অবস্থায় ইংরেজ সৈন্যের কাছে ধরা পরেন।

হামিং

নিলক্ষা আকাশ নীল, হাজার হাজার তারা ঐ নীলে অগণিত
আর নীচে ফ্রাম, গঞ্জ, হাট, জনপদ, লোকালয় আছে ঊনসত্তর হাজার
ধবল দুধের মত জোৎস্না তার ঢালিতেছে চাঁদ পূর্ণিমার
নষ্ট ক্ষেত, নষ্ট মাঠ, নদী নষ্ট, বীজ নষ্ট, বড় নষ্ট যখন সংগসার
তখন হঠাৎ কেন দেখা দেয় নিলক্ষার নীলে তীব্র শিষ দিয়ে এত বড় চাঁদ?
অতি অকস্মাৎ
স্তব্ধতার দেহ ছিঁড়ে কোন ধ্বনি? কোন শব্দ? কিসের প্রপাত?
গোল হয়ে আসুন সকলে, ঘন হয়ে আসুন সকলে,
আমার মিনতি আজ স্থির হয়ে বসুন সকলে
অতীত হঠাৎ হাতে হানা দেয় মানুষের বন্ধ দরোজায়
এই তীব্র স্বচ্ছ পূর্ণিমায় নূরুলদীনের কথা মনে পরে যায়
কালঘুম যখন বাংলায়
তার দীর্ঘ দেহ নিয়ে আবার নূরুলদীন দেখা দেয় মরা আঙিনায়
নূরুলদীনের বাড়ী রংপুরে যে ছিল
রংপুরে নূরুলদীন একবার ডাক দিয়েছিল ১১৮৯ সনে
হোক প্রতিবাদ গানে গানে
হোক প্রতিবাদ সব খানে
চাইনা দেখতে আর পোড়া মুখ
হোক প্রতিবাদ গঞ্জে গ্রামে
আল্লাহ ভগবানের নামে
চাইনা সহিংসতায় মানুষ পুড়ুক
জেগে ওঠো সব্বাই জেগে ওঠো দেশময়
নয় রাজনীতির নামে আর মানুষ খুন নয়
আবার বাংলার বুঝি পড়ে যায় মনে
নূরুলদীনের কথা মনে পড়ে যায়
যখন শকুন নেমে আসে এই সোনার বাংলায়
নূরুলদীনের কথা মনে পড়ে যায়
যখন আমার কন্ঠ বাজেয়াপ্ত করে নিয়ে নিয়ে যায়
নূরুলদীনের কথা মনে পড়ে যায়
যখন আমার দেশ পুড়ে যায় দুই হায়েনার ক্ষমতার লালসায়
যখন আমারই ভাই এর রক্তে রাঙানো ফেব্রুয়ারিতে
শত মানুষের ছাই উড়ে যায়
যখন এক দিনমজুর তিনদিন মৃত্যুর সাথে লড়াই করে হেরে যায়
যখন গণতন্ত্রের পতাকাতলে লালন করা শুয়োরের বাচ্চাদের তান্ডবলীলায়
৬ বছরের এক ফুটফুটে শিশু দগ্ধ হয়ে যায়
(যখন হাসপাতালের বেডের পাশে তার মা
উন্মাদিনী হয়ে সারারাত বিলাপ করে যায়)
যখন শান্তি রক্ষার অজুহাতে পুলিশি রাইফেল তাক করে
নিরীহ মানুষের দিকে গুলি ছোঁড়া হয়
যখন স্বার্থলোভের আগুনে ভালোবাসার মানুষগুলো কঙ্কাল হয়ে যায়
যখন আমার স্বপ্ন লুট হয়ে যায়
নুরুলদীনের কথা মনে পড়ে যায়
যখন আমরই দেশে এ আমারই দেহ থেকে রক্ত ঝরে যায়
ইতিহাসসের প্রতিটি পৃষ্ঠায়।

অবুঝ শিশু, বৃদ্ধা নারীর গায়ে পেট্রোল বোমা ছুড়ে
কিসের দাবি করছো তুমি সাধারন মানুষ পুড়ে ।
এই বর্বরতা রুখতে হবে সব্বাই মিলে
এসো এখনই প্রতিবাদ মিছিলে

হোক প্রতিবাদ গানে গানে
হোক প্রতিবাদ সব খানে
চাইনা দেখতে আর পোড়া মুখ
হোক প্রতিবাদ গঞ্জে গ্রামে
আল্লাহ ভগবানের নামে
চাইনা সহিংসতায় মানুষ পুড়ুক

আসুন, আসুন তবে, আজ এই প্রশস্ত প্রান্তরে
যখন স্মৃতির দুধ জোৎস্নাআর সাথে ঝরে পড়ে
তখন কে থাকে ঘুমে? কে থাকে ভেতরে?
কে একা বসে আশ্রুপাত করে?
সমস্ত নদীর অশ্রু অবশেষে ব্রহ্মপুত্রে মেশে
নূরুলদীনের কথাও যেনো সারাদেশে
পাহাড়ী ধলের মত নেমে এসে সমস্ত ভাসায়
অভাগা মানুষ জেগে ওঠে আবার এ আশায়
যে, আবার নূরুলদিন একদিন আসিবে বাংলায়
আবার নূরুলদীন একদিন কালপূর্ণিমায়
দিবে ডাক, “জাগো বাহে, কোনঠে সবায়?”

Licence : All Rights Reserved


X